রবিবার, ১৪ জুলাই ২০২৪ | ৩০ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

আত্রাইয়ে পাকাকরণের তিনদিন পর ভেঙে গেল সড়ক

আত্রাই (নওগাঁ) প্রতিনিধি
১৪ সেপ্টেম্বর ২০২৩ ০৮:৪৩ |আপডেট : ১৫ সেপ্টেম্বর ২০২৩ ০৩:১২
ছবি : সংগৃহীত
ছবি : সংগৃহীত

নওগাঁর আত্রাইয়ে সড়ক পাকাকরণের মাত্র তিনদিনের মাথায় ভেঙে গেছে। অনিয়ম ও নিন্মমানের সামগ্রী ব্যবহার করে সড়ক পাকাকরণ করায় এত অল্প সময়েই রাস্তা ভেঙে যাচ্ছে বলে অভিযোগ করেছেন স্থানীয় বাসিন্দারা।

তবে ঠিকাদার বলছেন,অনিয়ম নয়,মালমসলা মিশ্রণের সময় একটু কমবেশি হওয়ার কারণে এমনটি হতে পারে। এদিকে খবর পেয়ে এলজিইডি নওগাঁ জেলা নির্বাহী প্রকৌশলী তোফায়েল আহমেদ বুধবার সড়ক পরিদর্শন করেছেন।

জানা গেছে,অগ্রাধিকারের ভিত্তিতে গুরুত্বপূর্ণ পল্লী অবকাঠামো উন্নয় প্রকল্প-৩এর আওতায় উপজেলার আহসানগঞ্জ-নলডাঙ্গা সড়কের দাড়িয়াগাথী আব্দুলের মোড় থেকে আশরাফ আলী চৌধুরী সেতু পর্যন্ত ৮১২ মিটার সরড়ক পাকাকরণে ৮৫ লাখ ১০ হাজার ১১৬ টাকা ব্যয় ধরে টেন্ডার দেয়া হয়। এরপর কার্যাদেশ জারি করে গত ৯ ফেব্রুয়ারির মধ্যে কাজ শেষ করতে বলা হয়।

তবে কাজ শুরু করলেও ঠিাকাদার এবং উপজেলা প্রকৌশলী দ্বন্দ্বে বেশ কিছু দিন ধরে কাজ বন্ধ ছিল। এর পর গত ৩০ জুন পর্যন্ত কাজের সময়সীমা বাড়িয়ে নেয় ঠিকাদার। পরে পাকাকরণের কাজ শুরু করে গত বুধবার নাগাদ কাজ শেষ করেন। কিন্তু কাজ শেষ করার মাত্র তিন দিনের মাথায় দাড়িয়াগাথী আব্দুলের মোড়ে অদুরে পশ্চিমে রাস্তার এক পাশ পাকা অংশ ভেঙে যায়।

এছাড়া পাকা সড়কের বিভিন্ন জায়গায় এখনই কার্পেটিং ওঠে যাচ্ছে বলে জানান স্থানীয় বাসিন্দারা। স্থানীয় আজাহার আলী, আব্দুস ছোবহান এবং জাকির হোসেনসহ অনেকেই জানান,রাস্তার কাজ শুরু থেকেই নানান অনিয়ম চলে আসছে। রাস্তা পাকাকরণে নিম্নমানের সামগ্রী ব্যবহার করায় এখনই ভেঙে যাচ্ছে। এছাড়া রাস্তার উপরের পাথর ওঠে যাচ্ছে। তারা বলছেন,যেভাবে রাস্তা নির্মান করা হয়েছে তাতে খুব অল্প সময়েই পুরো রাস্তা নষ্ট হয়ে চলাচলে অযোগ্য হয়ে পড়তে পারে। এতে আবারো দুর্ভোগে পড়বে পথচারী ও এলাকাবাসী।

এব্যাপারে ঠিকাদার রেন্টু হোসেন বলেন,রাস্তার যেস্থানে ভেঙেছিল লোক পাঠিয়ে সে জায়গা মেরামত করা হয়েছে। রাস্তা পাকাকরণে কোনো অনিয়ম হয়নি জানিয়ে বলেন,অনেক সময় মেশিনে মাল-মসলা মিশ্রণ করতে গিয়ে একটু কমবেশির কারণে এমনটি হয়েছে হযতো।

এব্যাপারে আত্রাই উপজেলা এলজিইডি প্রকৌশলী ইমরান খানের সঙ্গে কথা বলতে একাধীকবার অফিসে গিয়েও তাকে পাওয়া যায়নি। ফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি ফোনে কথা বলবেননা বলে জানান।

এলজিইডির নওগাঁ জেলা নির্বাহী প্রকৌশলী তোফায়েল আহমেদ বলেন,খবর পেয়ে বুধবার সড়ক পরিদর্শন করেছি। তবে কাজের মান খারাপের কারণে নয়,সড়কের পাশে পুকুর থাকায় বৃষ্টির পানি ওই দিক দিয়ে নেমে যাওয়ায় ভেঙে গেছে। তবে ভাঙা অংশ মেরামত করা হয়েছে বলে জানান তিনি।

 



মন্তব্য করুন