শুক্রবার, ১৪ জুন ২০২৪ | ৩১ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

দোষী সাব্যস্ত হলে কত বছরের জেল হতে পারে বাইডেনের ছেলের?

অনলাইন ডেস্ক
১৬ সেপ্টেম্বর ২০২৩ ০৪:৩৪ |আপডেট : ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২৩ ০৭:০২
হান্টার বাইডেন
হান্টার বাইডেন

যুক্তরাষ্ট্রের ইতিহাসে এই প্রথম কোনো ক্ষমতাসীন প্রেসিডেন্টের সন্তান ফৌজদারি অপরাধের অভিযোগে অভিযুক্ত হলেন। বৃহস্পতিবার ডেলাওয়্যার ফেডারেল আদালতে মাদকসেবী থাকাকালে আগ্নেয়াস্ত্র রাখা,মিথ্যা তথ্য প্রদানসহ তিনটি বিষয়ে তাকে অভিযুক্ত করেন প্রসিকিউটররা। মার্কিন সরকারের কাছে দোষ স্বীকার করে মামলা নিষ্পত্তির চেষ্টায় ব্যর্থ হয়ে শেষ পর্যন্ত আদালতে বিচারের মুখামুখি হতে হলো মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের ছেলে হান্টার বাইডেনকে। এদিকে, এ ঘটনা আসন্ন মার্কিন প্রেসিডেন্টের নির্বাচনী প্রচারণায় প্রভাব ফেলবে কি না তা নিয়ে উৎকণ্ঠা বাইডেন শিবিরে।

অভিযোগে বলা হয়, ২০১৮ সালের অক্টোবরে ডেলাওয়্যারের আগ্নেয়াস্ত্রের দোকান থেকে হান্টার একটি রিভলবার কিনেছিলেন। আগ্নেয়াস্ত্রটি কেনার সময় তিনি মিথ্যা বলেছিলেন। হান্টার মিথ্যাভাবে দাবি করেছিলেন, তিনি কোনো উত্তেজক মাদকদ্রব্যের বেআইনি ব্যবহারকারী নন। তিনি মাদকাসক্ত নন। তবে সে সময় তিনি মাদক (কোকেন) ব্যবহারকারী ছিলেন।

যুক্তরাষ্ট্রের ফেডারেল আইন অনুযায়ী, আগ্নেয়াস্ত্র কেনার সময় বাধ্যতামূলকভাবে যেসব তথ্য দিতে হয়, সেখানে মিথ্যা বলা অপরাধ। আবার মাদক ব্যবহারকালে আগ্নেয়াস্ত্র রাখাও অপরাধ।

যুক্তরাষ্ট্রের বিচার বিভাগের বিবৃতির তথ্য অনুযায়ী, মামলায় দোষী সাব্যস্ত হলে হান্টারের সর্বোচ্চ ২৫ বছরের কারাদণ্ড হতে পারে। একই সঙ্গে সাড়ে ৭ লাখ ডলার জরিমানা হতে পারে। যদিও এই ধরনের অহিংস অপরাধের ক্ষেত্রে আসামিরা কমই সাজা পেয়ে থাকে।

হান্টারের আইনজীবী অ্যাবে লোয়েল বলেন, আমরা বিশ্বাস করি এ মামলায় তিনি নির্দোষ প্রমাণিত হবেন। মামলায় আমরা আদালতে সকল প্রমাণ দিয়েছি। তিনি কোনো প্রকার আইন অমান্য করেননি।

হান্টার এমন একসময় আগ্নেয়াস্ত্র-সংক্রান্ত মামলায় অভিযুক্ত হলেন, যখন তাঁর বাবা প্রেসিডেন্ট বাইডেনের বিরুদ্ধে আনুষ্ঠানিক অভিশংসন তদন্ত শুরু করার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।

গত মঙ্গলবার বাইডেনের বিরুদ্ধে আনুষ্ঠানিক অভিশংসন তদন্ত শুরুর ঘোষণা দেন মার্কিন কংগ্রেসের নিম্নকক্ষ প্রতিনিধি পরিষদের স্পিকার কেভিন ম্যাকার্থি। যদিও এ উদ্যোগকে রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত বলে মন্তব্য করেছে হোয়াইট হাউস।

আইনজীবীরা জানান, এ ঘটনার ২০২৪ সালের মার্কিন প্রেসিডেন্টের নির্বাচনী প্রচারণায় প্রভাব ফেলবে। এ নিয়ে কোনো সন্দেহ নেই। কেননা আগামী নির্বাচনে মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন এবং সাবেক প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন। ফলে নির্বাচনের আগে ছেলের বিরুদ্ধে এমন মামলা বাইডেনের নির্বাচনকে প্রভাবিত করতে পারে।



মন্তব্য করুন